ইসলামে স্বামী-স্ত্রী সহবাসের সম্পূর্ণ নিয়ম ও পদ্ধতি!

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক। আশা করি নিশ্চয়ই ভালো আছেন। ইসলামে সহবাসের নিয়ম দেওয়া আছে অত্যন্ত সুন্দর ও পূর্ণাঙ্গ রূপে। দাম্পত্য জীবনকে মধুর এবং প্রেমময় করতে উৎসাহ প্রধান করা হয়েছে ইসলামে। কিভাবে সহবাস করতে হয়, ইসলামে সহবাসের নিষিদ্ধ দিন সহ সবকিছুই কুরআন এবং হাদিসে বিস্তারিত বর্ণিত আছে। আজকে আমরা জানবো ইসলামে স্বামী-স্ত্রী সহবাসের সম্পূর্ণ নিয়ম ও পদ্ধতি সম্পর্কে।

ইসলামে স্বামী-স্ত্রী সহবাসের সম্পূর্ণ নিয়ম ও পদ্ধতি

সহবাসের শুরুতে যা করতে হবে

সহবাসের শুরুতে নিয়ত করতে হবে। নিয়ত মানে কী জানেন? পবিত্র মনে মনটাকে স্থির করা। সহবাস একটি পবিত্র কর্তব্য। কারণ হাদিসে স্ত্রী সহবাসকে সদকা বলা হয়েছে। নিয়তে থাকতে হবে, আল্লাহর সন্তুষ্টি, হারাম থেকে নিজেকে বিরত রাখা এবং সন্তান লাভের আশা। শয্যা যাপনের আগে অবশ্যই “বিসমিল্লাহ” বলবেন।

সহবাসের দোয়া :~ বিসমিল্লাহি আল্লাহুম্মা জান্নিবনাশ শায়ত্বানা ওয়া জান্নিবিশ শায়ত্বানা মা রাযাক্বতানা।

অর্থ :~ ‘হে আল্লাহ! আপনার নামে (যৌন মিলন বা সহবাস) শুরু করছি, আপনি আমাদের (স্বামী-স্ত্রী উভয়ের) কাছ থেকে শয়তানকে দূরে রাখুন। আমাদের মিলনের ফলে যে সন্তান দান করবেন, সে সন্তানকেও শয়তান (যাবতীয় আক্রমণ) থেকে দূরে রাখুন।’

#আরও পড়ুন: আসরের নামাজ কত রাকাত ও কীভাবে পড়তে হয় জানুন!

সহবাসের নিয়ম

  • পরিষ্কার কাপড় কিংবা টিস্যু রাখবেন।
  • উলঙ্গ অবস্থায় সহবাস জায়েজ কিন্তু স্ত্রীর লজ্জাস্থান দর্শন নিষেধ।
  • বীর্যপাত হলে সাথে সাথে জননাঙ্গ বের করে আনবেন না স্ত্রী যোনী থেকে। সময় নিন। স্ত্রীর তৃপ্তির দিকে নজর দিন।
  • পায়ু পথে সহবাস নিষিদ্ধ।
  • স্ত্রীর সন্তুষ্টির জন্য চুম্বন, স্তন মর্দন, আলিঙ্গন, করতে হবে। স্ত্রীর স্তন চোষা হারাম নয় তবে স্ত্রীর দুধ পান করা যাবে না। আপনার স্ত্রীর দুধে সন্তানের হক রয়েছে, আপনার নয়।
  • স্তন অতি জোরে মর্দন করবেন না। স্ত্রী ব্যথা পাবে। সহবাস একটি দ্বিপাক্ষিক আনন্দের বিষয়, প্রেমের বিষয়। এটি সবসময় খেয়াল রাখবেন।
  • সহবাসের শুরুটা করতে হয় সুন্দর ভাবে স্ত্রীকে আদর করে। অতি উত্তেজনায় হামলে পরবেন না।
  • মানুষের সবচেয়ে সম্মানিত স্থান তার চেহারা এবং নাপাক জায়গা হলো লজ্জাস্থান।তাই লজ্জাস্থানে মুখ দেওয়া বা suck করা অত্যন্ত গর্হিত কাজ এবং হারাম তো বটেই।এটি মাকরুহ (আল্মুহীতুল বুরহানী ৮/১৩৪)
  • স্ত্রী তৃপ্ত কিনা সেটা খেয়াল রাখা স্বামীর কর্তব্য। শুধু নিজের তৃপ্তির কথা ভাবলে চলবে না।
  • সহবাস শেষে স্ত্রীকে আদর করবেন, জড়িয়ে ধরবেন।
  • যৌন মিলনের পরে গোসল করা ফরজ।
  • দাঁড়িয়ে, শুয়ে, বসে, কাত হয়ে সহবাস করা যাবে। কিন্তু তা শুধুমাত্র যোনী পথে।

প্রিয় পাঠক, দেখুন ইসলামের সৌন্দর্য্য। সব কিছুর পূর্ণাঙ্গ ব্যাখা আছে বলেই একে বলা হয় পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান। ইসলামে স্বামী-স্ত্রী সহবাসের সম্পূর্ণ নিয়ম ও পদ্ধতি সম্পর্কে আজকে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। আপনাদের কোনো প্রশ্ন কিংবা কিছু জানার থাকলে আমাদের কমেন্ট বক্সে সেটি বলতে পারেন। Hadithghor এর সাথে থাকুন।আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে যথাযথ নিয়মে সহবাস করার তৌফিক দান করুন। আমীন। 🤲🏻

ভালো লাগলে শেয়ার করুন:

মন্তব্য করুন:

Scroll to Top